২২ জুলাই, ২০২৪

সর্বশেষ:

সর্বশেষ:

শিশু অধিকার

‘ফেইথ ইন একশন’ নারীর ক্ষমতায়ন, শিশু অধিকার ও সুরক্ষায় সংলাপ

শিশু অধিকার
Facebook
Twitter
LinkedIn

সংলাপে জানানো হয়, ‘ফেইথ ইন একশন’ নারীর ক্ষমতায়ন, শিশু অধিকার ও সুরক্ষায় ২০১৯ সালে খুলনা জেলার কয়রা উপজেলায় কাজ শুরু করে। যা পরবর্তীতে পরিবর্তন হয়ে মুক্তির আহŸান প্রকল্প নামে কয়রা উপজেলার ৬টি ইউনিয়নের ২৩টি গ্রামে পরিচালিত হচ্ছে। প্রকল্পের আওতায় বাল্যবিবাহ হ্রাস, নারীর ক্ষমতায়ন ও ঝুঁকিপূর্ণ শিশু শ্রম হ্রাসসহ সচেতনমূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।

এই কার্যক্রম পরিচালনাকালে দেখা গেছে, ওই সকল গ্রামের গত জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত আত্ম-সহায়ক নারী দল, গুচ্ছ পর্যায়ে সংগঠন, শিশু সুরক্ষা কমিটি এবং শিশু ও কিশোর-কিশোরী ক্লাবের সদস্যদের মাধ্যমে ২২ জন শিশুর বাল্যবিয়ে বন্ধে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এরপরও ওই এলাকায় ৬৭টি বাল্যবিয়ে হয়েছে। এরমধ্যে ৬৪ জন মেয়ে ও ৩ জন ছেলে শিশু রয়েছে।

বাল্যবিয়ের জন্য অর্থাভাব ও সচেতনতার অভাবকে দায়ি করে সংলাপে বলা হয়, পরিবারের লোকজন শিশুদেরকে লুকিয়ে, এমনকি আত্মীয়বাড়ি নিয়ে গিয়ে বিয়ের আয়োজন করে। এক্ষেত্রে স্থানীয় প্রভাবশালী ও জনপ্রতিনিধিদের সহযোগিতার প্রমাণ পাওয়া গেছে। এছাড়া বিদ্যমান আইনের যথাযথ প্রয়োগের অভাবও বাল বিয়ে বন্ধের পথে বাধা হিসেবে কাজ করছে। বাল্যবিয়ে বন্ধে জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুকি মোকাবেলায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ, লাবণাক্ততার আগ্রাসন রোধ, নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি, আইনের যথাযথযথ প্রয়োগ নিশ্চিত এবং সচেতনতা বাড়াতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ করা হয় সংলাপে।

আলোচনায় অংশ নিয়ে অধ্যাপক মীর মোহাম্মদ আলী বলেন, পরিবারের বোঝা কমাতে অধিকাংশ ক্ষেত্রে মেয়েদের বাল্যবিয়ে দিয়ে অবিভাবকরা সন্তানের জীবনকে বিপদের মধ্যে ফেলছে। তাই অবিভাকদের আরো দায়িত্বশীল হতে হবে। একইসঙ্গে মেয়েদের সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

সরকারের প্রকল্প কর্মকর্তা হালিমা খানম বলেন, প্রতিটি জেলার জেলা প্রশাসকেরা বাল্যবিয়ে নজরদারি করছেন। একেবারে ইউনিয়ন থেকে উপজেলা এবং জেলা পর্যায়ে এই নজরদারি চলছে। সরকারের হেল্পলাইন নম্বরে (১০৯) আসা কলের সংখ্যা বাড়লেও বাল্যবিয়ে বেড়েছে এমন তথ্য নেই। তিনি বাল্যবিষয়ে বন্ধে সরকারের কার্যক্রমে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

Facebook
Twitter
LinkedIn

সর্বশেষ খবর

abu sufian
dainikbd-ads
Arup Juarder Khulna Batiaghata